২৪ ঘন্টার মধ্যেই গাইবান্ধার আলোচিত সেই ধর্ষককে গ্রেফতার করলো পুলিশ

Tista Tista

Express

প্রকাশিত: ২:০৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০

২৪ ঘন্টার মধ্যেই গাইবান্ধার আলোচিত সেই  লম্পট ধর্ষক চাচাকে গ্রেফতার করেছে গাইবান্ধা সদর  থানা পুলিশ…… 

  • মাসুম লুমেনঃ  গাইবান্ধায় ভাতিজীকে ধর্ষণের অপরাধে কথিত সেই লম্পট ধর্ষক চাচাকে (লিয়ন) ২৪ ঘন্টার মধ্যেই গ্রেফতার করেছে গাইবান্ধা সদর থানা পুলিশ। বুধবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যার আগ মহুর্তে  সদর উপজেলার খোলাহাটি  ইউনিয়নের হাসেমবাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে এশিয়ান নিউজকে নিশ্চিত করেছেন সরাসরি অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া গাইবান্ধা সদর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার।

ধর্ষক লিয়ন সরকার খামার টেংগরজানি গ্রামের সাহেব উদ্দিনএর ছেলে।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি খান মো শাহরিয়ার এশিয়ান নিউজকে বলেন, ধর্ষণের ঘটনা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এটি মোকাবেলা করতে হবে চ্যালেঞ্জ নিয়ে। সেইসাথে ছেলে-মেয়ে বা নারী-পুরুষ উভয়ের পরিবারকে এই অনৈতিক অপরাধ এবং বিবাহ পূর্ব সম্পর্কগুলোর ব্যাপারে অধিক সচেতন ও কঠোর হতে হবে। শুধু সরকার অথবা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে এই অনৈতিক কর্মকাণ্ড রোধ করা সম্ভব নয়। জনগণ হিসেবে যেমন নাগরিক অধিকার ভোগ করবেন, তেমনি নাগরিক হিসেবেও রাষ্ট্রের দেয়া দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করতে হবে। সেটি না হলে সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে বিস্তার লাভ করা এই নৈতিক অবক্ষয় রোধ সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য গত মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) রাতে বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় মেয়েটি পাশের বাড়ীতে টেলিভিশন দেখতে যায়। রাত ৮ টার দিকে মেয়েটি প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে ঘরের বাহিরে বের হলে আগে থেকে ওৎপেতে থাকা লম্পট লিয়ন মেয়েটির মুখ চেপে ধরে পার্শ্ববর্তী মামুন মিয়ার একটি নির্মাণাধীন ঘরে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় মেয়েটি চিৎকার-চেচামেচি করতে চাইলে গামছা দিয়ে তার মুখ বেঁধে ফেলে। ধর্ষণ করার পর এ ঘটনা কাউকে না জানাতে মেয়েটিকে ভয়ভীতি ও জীবন নাশের হুমকী দিয়ে লম্পট লিয়ন পালিয়ে যায়। এরপর মেয়েটি রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ী ফিরে কান্নাকাটি করলে ঘটনাটি জানতে পারে তার পরিবার। এসময় মারাত্বক আহত ও রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়েটিকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে তার পরিবার। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদি হয়ে সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।