ঘুষের টাকা ফেরতের আশ্বাস পেল হতদরিদ্র চার নারী

টাকা ফেরতের আশ্বাসের সাথে সাথে চাল,ডাল,তেল পেয়ে ভীষণ খুশি কুপতলার সেই হত-দরিদ্র নারীরা

Tista Tista

Express

প্রকাশিত: ৬:০০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

মাসুম লুমেনঃ

গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়নের হত-দরিদ্র নারীদের অর্থ ফেরতের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আজ সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ভুক্তভোগী ওই নারীদেরকে শুনানির জন্য ডেকে নেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রসূন কুমার চক্রবর্তী। শুনানি শেষে ভুক্তভোগী ওই চার হতদরিদ্র নারীকে ১০ কেজি চাল, ডাল, তেল ও লবন এই খাদ্য সামগ্রী উপহার হিসেবে প্রদান করেন ইউএনও। এতে ভীষণ খুশি ওই নারীরা।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালে ঘুষ নিয়ে স্থানীয় সরকার অধ্যাদেশ বা নীতিমালা ভেঙ্গে  কুপতলা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের স্কুলের বাজার ও ডাকুয়ারকুটি গ্রামের মৃত বাচ্চুর স্ত্রী আনোয়ারা বেওয়া, মৃত রফিকের স্ত্রী লাখি বেওয়া, মৃত ওয়াহেদের স্ত্রী করিমন বেওয়া ও বজলার রহমানের স্ত্রী ছবি বেগম নামের ওই চার উপকারভোগীর কাছে থেকে সরকারি সেবা আধা পাকা ঘর, মাটি কাটার কাজ ও মাতৃত্বভাতার বিনিময়ে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নিলেও দীর্ঘ চার বছরে তা ফেরত দেননি কুপতলা  ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক।

পরবর্তীতে টাকা ফেরত চাইতে গেলে আজ নয় কাল করতে করতে পেরিয়ে যায় প্রায় চার চারটি বছর। এর প্রতিকার চেয়ে ভুক্তভোগী ওই চার বয়স্ক নারী গত বছরের ডিসেম্বর মাসের ১৮ তারিখে সদর ইউএনও বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করলেও ( স্মারক নং -৯৬১) সেই অভিযোগের আর কোন প্রতিত্তোর পাননি তারা। শেষমেশ বাধ্য হয়ে গত মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিকদের কাছে লিখিত আবেদনসহ অভিযোগের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরেন বয়সের ভারে নুয়ে পড়া ওইসব হত-দরিদ্র নারীরা।