সিদ্ধ ডিমেই সংসার চলে নজরুলের

প্রকাশিত: ৬:০৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৭, ২০২১

প্রায় এক যুগ ধরে সিদ্ধ ডিম বিক্রি করেন নজরুল ইসলাম। গাইবান্ধা শহরের পুরাতন বাজারের প্রবেশ পথে বসেই চালিয়ে যাচ্ছেন এই ব্যবসা। পুষ্টি গুণে ডিমের চাহিদাও বেশ। সারা বছরই কাঁচা কিংবা সিদ্ধ সব ডিমেরই ব্যবসা করেন তিনি। তাই তো রাত-দিন, ঝড়বৃষ্টিতেও থেমে থাকেনা নজরুলের ডিমের ব্যবসা। যেকোনো সময় আসলেই দেখা মেলে নজরুলের। চাওয়া মাত্রই ছিলে কেঁটে লবন মাখিয়ে কাস্টমারের হাতে তুলে দেন সিদ্ধ ডিম। তবে কাঁচা ডিমের তুলনায় শীতকালে সিদ্ধ ডিমের চাহিদা একটু বেশিই বলে জাগরণকে জানান নজরুল।

কাঁচা থেকে সিদ্ধ হতেই দাম প্রায় দ্বিগুণ হলেও চাহিদায় ছেদ পড়ছে না। ফলে মানুষের সেই চাহিদার কারণে সিদ্ধ ডিম বিক্রিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন নজরুল।

এভাবেই গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়নের মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে নজরুল সামান্য ডিমের ব্যবসার ওপর ভর করেই গোটা পরিবারের ব্যয় নির্বাহ করছেন। সংসারে স্ত্রী ছাড়াও এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে নজরুলের।

নজরুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে তিনি হাঁস, মুরগি ও কোয়েল পাখির সিদ্ধ ডিম বিক্রি করছেন। এর মধ্যে হাঁস ও দেশি মুরগির সিদ্ধ ডিম ১৫ টাকা, ফার্মের মুরগির ডিম ১২ টাকা এবং কোয়েল পাখির ডিম চার টাকা। প্রতিদিনের ব্যবসায় ১২’শ থেকে ১৩’শ টাকা পুঁজি খাটিয়ে গড়ে আয় হয় ২’শ থেকে আড়াইশ টাকা।