টোল আদায়ে অনড় সওজ, বন্ধের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত: ৪:৫১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৫, ২০২১

মাসুম লুমেন:

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত বড়দহ সেতুতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কতৃক টোল আদায় বন্ধের দাবিতে সড়ক অবরোধ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। আজ মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সহস্রাধিক এলাকাবাসী ও যানচলাচল কারীরা এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

বড়দহ সেতু টোল মওকুফ ও মহাসড়ক বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক সাখোয়াত হোসেন বিপ্লব ও সদস্য সচিব শাহজাহান আলী সরকারের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালন করে ভুক্তভোগী জনগণ।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তারা বলেন, গাইবান্ধা একটি বানভাসি হত-দরিদ্র অঞ্চল। এতদিন সেতু না থাকায় জেলার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন থাকার কারনে অত্রাঞ্চলের মানুষ অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে ছিল। সেতুতে টোল আরোপ করায় অর্থনৈতিকভাবে বিপদে পড়েছে হত-দরিদ্র মানুষগুলো। তাই অবিলম্বে দীর্ঘদিনের কাঙ্ক্ষিত এই সেতুতে টোল আদায় বন্ধের দাবি জানান তারা।

জানা যায়, সম্প্রতি সেতুটিতে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয় সড়ক ও জনপথ বিভাগ। গত ২০১৭ সালে সরকার নির্ধারিত হারে বড়দহ সেতুতে টোল আদায় শুরু করা হয়েছিল। সেসময় গোবিন্দগঞ্জ চার আসনের সাংসদ আবুল কালাম আজাদ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় বরাবর বড়দহ সেতুতে আরোপিত টোল মওকুফের আবেদন করলে টোল আদায় বন্ধ করা যায়। পরে টোল আদায় করা শুরু হলে গত বছরের ২৮ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জ চার আসনের সাংসদ মনোয়ার হোসেন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক আবেদনে আবারও টোল আদায় বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে।

 

গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ (সওজ) কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৭ সালে গোবিন্দগঞ্জের বড়দহ এলাকায় কাটাখালি নদীর উপর বড়দহ সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এরপর দীর্ঘদিন সেতুটির কাজ বন্ধ থাকে। পরে সেতুটির কাজ সম্পন্ন হলে ২০১৫ সালে সেতুটির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই সেতুটি নির্মাণের ফলে গাইবান্ধা সদর, সাঘাটা, ফুলছড়ি, পলাশবাড়ী ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ উপকৃত হচ্ছে।

জানতে চাইলে গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আসাদুজ্জামান মুঠোফোনে বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী কোনো সেতু ২০০ মিটারের বেশি হলে সরকার টোল আদায় করবে। এক্ষেত্রে বড়দহ সেতুর দৈর্ঘ্য ২৫৩ মিটার। তাই সেতুতে টোল আদায়ের জন্য ঠিকাদারকে সরকার থেকে ইজারা দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি সরকারের ভাবনায় রয়েছে বলে তিনি জানান।