সাকরাঈন ঘুড়ি উৎসব ১২ নং ওর্য়াড ঢাকা দক্ষিন সিটি করর্পোরেশন

প্রকাশিত: ৮:২২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২১

এসো ঘুড়ি উড়াই ঐতিহ্য বাঁচাই পৌষ সংক্রান্তিতে পুরান ঢাকায় যে বর্ণিল উৎসব পালিত হয়ে আসছে যুগের পর যুগ, সেই সাকরাইন উৎসবে এবার নাম লেখাল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।এবারই প্রথম এই সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে ১৪২৭ বঙ্গাব্দের ৩০ পৌষ (১৪ জানুয়ারি) বৃহস্পতিবার ঢাকার আকাশে হাজার হাজার ঘুড়ি ওড়ানো হল।  অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন  ১২ নং ওর্য়াড  কাউন্সিলর  মামুন রশিদ শুভ্র  ঢাকা দক্ষিন সিটি করর্পোরেশন । স্থান : আবুজর গিফারী বিশ্ববিদ্যালয়  কলেজ সাকরাঈন উৎসব, মূলত পৌষসংক্রান্তি, ঘুড়ি উৎসব নামেও পরিচিত, বাংলাদেশে শীত মৌসুমের বাৎসরিক উদযাপন, ঘুড়ি উড়িয়ে পালন করা হয়। সংস্কৃত শব্দ ‘সংক্রান্তি’ ঢাকাইয়া অপভ্রংশে সাকরাঈন  রূপ নিয়েছে। পৌষ ও মাঘ মাসের সন্ধিক্ষণে, পৌষ মাসের শেষদিন সারা ভারতবর্ষে সংক্রান্তি হিসাবে উদযাপিত হয়। তবে পুরান ঢাকায় পৌষসংক্রান্তি বা  সাকরাঈন  সার্বজনীন ঢাকাইয়া উৎসবের রূপ নিয়েছে। বর্তমানে দিনভর ঘুড়ি উড়ানোর পাশাপাশি সন্ধ্যায় বর্ণিল আতশবাজি ও রঙবেরঙ ফানুশে ছেয়ে যায় বুড়িগঙ্গা তীরবর্তী শহরের আকাশ। এক কথায় বলা যায় সাকরাঈন  হচ্ছে এক ধরনের ঘুড়ি উৎসব।বাংলা ক্যালেন্ডারের নবম মাস  পৌষ  মাসের শেষ দিনে আয়োজিত হয় যা গ্রেগরীয় ক্যালেন্ডারের হিসেবে জানুয়ারি মাসের ১৪ অথবা ১৫ তারিখে পড়ে।বাংলায় দিনটি পৌষ সংক্রান্তি এবং ভারতীয় উপমহাদেশে মকর সংক্রান্তি নামে পরিচিত।বাংলাদেশের প্রাচীন উৎসব সমূহের মধ্যে পুরান ঢাকার সাকরাঈন  উৎসব অন্যতম। যদিও এটা সমগ্র বাংলাদেশব্যাপী পালিত হয় না কিন্তু খুব জনপ্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশি সংস্কৃতি। এটাকে ঐক্য এবং বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে দেখা হয়।